ব্লগ কি? ব্লগিং কেন করবেন? ব্লগ থেকে কিভাবে ইনকাম করবেন?

ব্লগ বেশ পরিচিত একটি নাম। ব্লগ শুধু একটি নাম-ই না , এই ব্লগ কে নিয়েই লক্ষ কোটি মানুষ সপ্ন দেখে অনলাইনে কেরিয়ার গরার। আজ আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব, ব্লগ কি? ব্লগিং কান করবেন? ব্লগ থেকে কিভাবে ইনকাম করবেন? A-Z আপনাদের সাথে শেয়ার করব এবং আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দিবো।

ব্লগ থেকে কিভাবে ইনকাম করবেন
ব্লগ থেকে কিভাবে ইনকাম করবেন

ব্লগ থেকে কিভাবে ইনকাম করবেন?

ব্লগ এবং ব্লগিং কি? (What is bloging)

কোন বিষয়ের উপর ধারাবাহিক ভাবে লেখা বা প্রতিদিনের কোন না কোন ঘটনা বা আপনি যে সকল বিষয়ে জানেন তা ধারাবাহিক ভাবে লেখার মাধ্যমে ইন্টারনেটে ছরিয়ে দেয়াকে বা সবার মাঝে শেয়ার করাকেই ব্লগিং বলে। এবং আপনাদের লেখা গুল যে ওয়েব সাইটে প্রকাশিত হয় বা প্রদর্শিত হয় তাকে ব্লগ বলে।

ওয়েব সাইট আর ব্লগ এর মধ্যে পার্থক্য কি?

আমরা জারা নতুন তারা আসলে ওয়েবসাইট ও ব্লগ এই দুটি কে গুলিয়ে ফেলি, মূলত ওয়েবসাইট হচ্ছে এমন একটি সাইট যা তৈরি করতে আপনাকে ডমেইন এবং হস্টিং এর প্রয়োজন পরবে। আর ব্লগ হচ্ছে সম্পুর্ন ফ্রি এইখানে আপনাকে কোন টাকা খরচ করতে হবে না। এ ছাড়া ও আরও অনেক কিছু আছে যা ধারা ব্লগ ও ওয়েব সাইটের পার্থক্য বোজা সম্ভব।

ব্লগিং কেন করবেন?

ব্লগিং করার দুটি কারন থাকেঃ

  1. যারা লেখালেখি পছন্দ করেন।
  2. ব্লগ থেকে আয় করা।

আসলে যোগসূত্রে আপনার দুটিই হয়ে গেল, মানে আপনার লেখা লেখি ভাল লাগে যার ফলে লিখতে থাকলেন আর ব্লগ থেকে ইনকাম করলেন। এমন হতে পারে আপনার লেখা লক্ষ লক্ষ মানুষ পরবে। আপনার লেখা পড়ে তারা ও উপকৃত হোল আর এই দিকে আপনি হয়ে গেলেন বড় মাপের একজন ব্লগার আর তখন আয়টাও হবে অকল্পনীয়।

ব্লগিং কেন করবেন?

এখন অনলাইনে ইনকাম এর জন্য অনেকে ব্লগ সাইট কেই বেছে নিয়েছে কিন্ত সঠিক নিয়ম না জানাই অনেকে হতাস হয়ে ব্লগিং ছেড়ে দিচ্ছে। আসলে ব্লগে অ্যাডসেন্স পাওয়া খুবই সহজ সে জন্য প্রথমে যা যা করতে সেটি হচ্ছে কারো লিখা কন্টেন্ট কপি করা যাবে না। যা লিখবেন সব নিজের লিখা হতে হবে। ভালো মানের ২৫-৩০ টা পোস্ট করেই আপনি অ্যাডসেন্স পেতে পারেন। আর অবশ্যয় অ্যাডসেন্স আর জন্য অ্যাপ্লাই করার আগে ব্লগে কয়েকটি পেইজ বানিয়ে নিবেন তা নাহলে অ্যাডসেন্স পবেন না । যেমনঃ Contact Us, Privacy policy, disclaimer, about us, terms and conditions. এই সকল পেজ গুলো কিন্তু অবশ্যয় অ্যাডসেন্স অ্যাপ্লাই করার আগে ক্রিয়েট করে নিবেন। তাহলে ২০-২৫ টা পোস্ট করার পরেই অ্যাডসেন্স পেয়ে যাবেন।

Also read…

কাস্টম ডোমেইনে কি অ্যাডসেন্স পাওয়া যায়? নাকি টপ লেভেল ডোমেইন লাগে?

উপরের সর্ত গুলো মানলে আপনি টপ লেভেল ডোমেইন ছাড়াও অ্যাডসেন্স পেতে পারেন। তবে আমি সাজেস্ট করব টপ লেভেল ডোমেইন নেয়ার জন্য। তাহলে আপনার ব্লগ সার্চ রাঙ্ক পাবে অল্প সময়ে। তবে আপনি যদি ফ্রি-তে ব্লগিং করতে চান তা পারবেন।

ব্লগ থেকে সফল হতে কত দিন সময় লাগে?

আপনার পোস্ট গুলো গুগল রাঙ্ক পেতে কিছুটা সময় লাগে নিয়মিত পোস্ট করতে থাকলে ৩-৪ মাস পর দেখবেন রেজাল্ট , আপনার পোস্ট কোয়ালিটি যদি ভালো হয় তবে অনেক ভিজিটর পেতে পারেন। আর আপনি যদি ভালো পরিমান ইনকাম করতে চান তাহলে লেগে থাকুন ১০০০ পোস্ট করুন আপনার ব্লগে। ১০০০ পোস্ট হওয়ার পর দেখবেন মাজিক নিজেকে তখন সফল মনে হবে। ৫০-১০০ টা পোস্ট লিখে ইনকাম আসবে কিন্তু তা দিয়ে আপনার কিছুই হবে না। দিন দিন পোস্ট বারতে থাকবে আরে আপনার ইনকাম ও বারতে থাকবে।

ব্লগ থেকে কত টাকা ইনকাম করা সম্ভব? [ how to earn money in bloging]

এটা সঠিক বলা যায় না কত টাকা ইনকাম করা সম্ভব । এটি সম্পূর্ণ আপনার উপর আর ব্লগে কি পরিমান ভিজিটর আসতেছে তার উপর নির্ভরশীল । তবে ব্লগ থেকে অনেক ভালো পরিমান আয় করা সম্ভব । আর আপনার ব্লগটি যদি ইংলিশ কন্টেন্ট এর হয়ে থাকে তাহলে ভাই কিছু না বললাম । লেগে থাকুন প্রতিদিন অল্প সময় দিন একটা দুইটা করে পোস্ট লিখুন।এমন সময় আসতে পারে যখন শুধু ব্লগ থেকেই প্রতি মাসে ৩০-৪০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। প্রয়োজন শুধু ধৈর্য আর কিছুটা সময়।

ব্লগে প্রতিদিন কতটি পোস্ট করা ভালো?

প্রতিদিন ৪-৫ টা করে পোস্ট করা ভালো তবে আপনার সময় কম থাকলে প্রতিদিন ১ টি করে পোস্ট লিখুন তবে মনে রাখবেন ১০০ টা পোস্ট না করে ইউনিক আর কোয়ালিটিফুল ১ টি পোস্ট করলেই যথেষ্ট। তাই প্রতিদিন কম পক্ষে ১ টি পোস্ট লিখুন।

ব্লগে বাংলা লিখলে ভালো নাকি ইংলিশ?

আপনি জানেন আপনি কোনটি ভালো পারে, তবে ইংলিশ কন্টেন্ট এ ইনকাম অনেক বেশি। তাই আপনি যদি ইংলিশে লেখালেখি করতে পারেন তাহলে বাংলা আর্টিকেল এই থেকে ইংলিশ আর্টিকেলে বেশি টাকা আয় করতে পারবেন।

ব্লগে কি কপি পোস্ট করা যাবে? অন্য কারো পোস্ট কপি করে আপনার ব্লগে দেয়া যাবে?

না এটি কখনো করতে যাবেন না। তাহলে আপনার ব্লগের রাঙ্ক হারাবেন সাথে অ্যাডসেন্স ও হারাবেন। তাই কপি করার কথা ভাবলে তা এখনি মাথা থেকে বের করে দিন। নিজে যেটুকু পারেন সেটুকু লিখুন ভুলেও আরেক জনের লিখা কপি করবেন না।

সর্বশেষ কিছু কথাঃ

আমরা অনেকে আছি যারা হাতে স্মার্টফোন পাওয়ার পর চিন্তা করি যদি অনলাইন থেকে ইনকাম করা যেত? অন্তত নিজের খরচটা নিজে চালাতে পারলেই হত? তখন আমরা গুগল ও ইউটিউব গেটে ২/১ তা অ্যাপ বা ওয়েবসাইট পাই যেখানে সারাদিন খেটেও আমাদের এমবি এর টাকা যোগাড় করতে পারি না। আমি আপনাদের সাজেসান দিবো এই সব অ্যাপ বা ওয়েবসাইট বাদ দিয়ে ব্লগিং করুন । হ্যাঁ মানলাম সাথে সাথে রেজাল্ট পাবেন না তবে ধৈর্য থাকুন নিয়মিত কন্টেন্ট লিখুন তারপর দেখবেন আপনার ক্যারিয়ার ।

ধন্যবাদ সবাইকে,দোয়া করবেন আমার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button